Category: speech

Election Manifesto 2018, Speech by Sheikh Hasina

Election Manifesto 2018
Bangladesh Awami League

Speech by
Sheikh Hasina
President, Bangladesh Awami League

Pan Pacific Sonargaon Hotel, Dhaka
Tuesday
4 Poush 1425
18 December 2018

Bismillahir Rahmanir Rahim
Dear Colleagues,
Distinguished Guests,
Representatives from Print and Electronic Media, Ladies and Gentlemen.

Assalamu Alaikum and a very good morning to you all.

I welcome you all at the declaration of the Election Manifesto of Bangladesh Awami League marking the 11th Parliamentary elections. I would like to thank the countrymen and the people outside of the country who have joined this event through television and social media.

I pay my deep homage to the greatest Bangalee of all times, Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman. I recall the 4 national leaders- Syed Nazrul Islam, Tajuddin Ahmed, Captain M Monsur Ali and A H M Kamaruzzaman- who were murdered on the 3rd November 1975 in prison. I would like to pay my tribute to the 3 million martyrs and 2 lakh women who faced sexual violence during the Bangladesh Liberation War. I convey my sympathies to the wounded freedom fighters and the family members of the martyrs. To the freedom fighters, I salute.

I remember with deep pain my mother Begum Fazilatunnesa Mujib, my three brothers – Captain Sheikh Kamal, Lieutenant Sheikh Jamal and ten-year-old Sheikh Rasel, Kamal and Jamal’s newlywed wives Sultana Kamal and Rozi Jamal, Bangabandhu’s brother Sheiklh Naser, his Military Secretary Brigadier Jamil and all the martyrs who were victims of the 15th August 1975 tragedy.

Today, I remember with respect, the founding president of Awami League, one of the oldest political parties in the subcontinent, Maulana Abdul Hamid Khan Bhashani, founding General Secretary Shamsul Haque, crusader of democracy Huseyn Shaheed Suhrawardy, Maulana Abdur Rashid Tarkabagish and all the founding members of Awami League.

I pay my deep homage to the martyrs who have given their lives for Bangla language.

I remember 22 leaders and activists of Awami League, including Ivy Rahman, who were killed in the 21st August 2004 grenade attack.

I remember the 21 thousand leaders and activists, including former Finance Minister Shah AMS Kibria, Awami League leader Ahsanullah Master, Manjurul Imam, Momtazuddin Ahmed, who were the victims of the brutal killings by BNP-Jamaat alliance terrorists after 2001.

I remember with great respect the people who gave their lives during the violence and petrol bombs attacks carried out by BNP-Jamaat goons during the 5th January 2014 parliamentary elections and from the 4th January 2015. I pray for the salvation of the departed souls and extend my condolences to the wounded.

I pay tributes to all the martyrs, including Salim, Delwar, Noor Hossain, Babul, Fattah, Raufun, and Basunia, of the anti-autocracy movement and the movement for achieving the rights to food and vote.

Dear Countrymen,
Since the general election of 2008, Bangladesh Awami League government has been running the state affairs for 10 years. In 2008, Bangladesh Awami League won two-third majority in the 9th general election.

We declared our election manifesto `Vision-2021’ targeting the the Golden Jubilee of the independence and the birth anniversary of the Father of the Nation. The main objective of it was to make Bangladesh a middle-income country by alleviating socio-economic condition of the people.

Before the 10th parliamentary election in 2014, Vision-2041 was declared pledging to build a developed-prosperous Bangladesh. In the 5th January election, for the second time, the people gave us the mandate to run the government to continue carrying out the process of implementing the Visions. All successes go to you.

Ladies and Gentlemen,
Today’s Bangladesh is financially strong. Small shocks cannot stop the progress of Bangladesh.

In 2015, the World Bank gave Bangladesh the status of a lower middle-income country. In March 2018, the United Nations declared that we have fulfilled the criteria for elevating to the status of a ‘developing country’.

Per capita income rose to USD 1,751 from from USD 543 in 2006. The foreign currency reserves increased from USD 3 billion to over USD 33 billion. Poverty rate decreased to 21.8 percent from 41.5 percent in 2006.

Bangladesh is one of the top 5 countries in the world of terms of economic progress. In the last ten years, the size of the GDP of Bangladesh has increased by more than 5 times from 4 lakh 82 thousand crore taka to about 22 lakh 50 thousand 479 crore taka. As per World Bank statistics, the economy of Bangladesh is the 31st based on purchasing power parity. According to the HBSC projection, Bangladesh will be the world’s 26th largest economy by 2030.

The size of the budget in the fiscal year 2005-06 was Tk 61 thousand crore. In the fiscal 2018-2019, the budget has increased by about 7.6 times to Tk 4 lakh 64 thousand 573 crore.

In the 2005-06, export revenue was only USD 10.52 billion. In the year 2017-18, it has increased to USD 36.67 billion. We are moving forward with the goal of exporting USD 60 billion by 2021.

Dear Countrymen,
Bangladesh’s greatest achievements have come whilst being guided and led by Awami League. Bangladesh Awami League led the language movement by which Bangla was established as the state language. The struggle of independence and liberation war took place under the leadership of Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman. The party also led the movement of overthrowing the autocracy and establishment of rights of food and vote.

Before the assassination of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman on 15th August 1975, he got the opportunity to govern the country for only three and a half years.

The Father of the Nation started his journey with an empty treasury, damaged communication systems and closed factories. It was a difficult task to bring 10 million refugees back home and to arrange their food and lodging. Moreover, domestic and international conspiracies started against Bangladesh. Combating these obstacles and conspiracies, he brought the country back to normalcy in just three and a half years. Bangladesh was included in the LDCs. And then, the father of the nation was killed to stop the country’s advancement.

Following his assassination, the rulers after 1975 turned Bangladesh into a dependent and beggar country.
During 1975 to 1996, Bangladesh was known as one of the poorest countries in the world. Bangladesh was the symbol of flood, drought, cyclones, and a country of the downtrodden.

Awami League formed the government after 21 years by winning in the general elections on 12th June 1996. After 21 years, people of Bangladesh got the taste of freedom and government of the people.

From 1996 to 2001- this 5-year was the golden period for the people of Bangladesh. The country has achieved unprecedented progress in the socio-economic sector. At this time, we signed the Chittagong Hill Tracts Peace Agreement and the 30-year Ganges Water Sharing Treaty with India. We constructed Bangabandhu Bridge on the Jamuna river and acquired self-sufficiency in food production.

Besides, we launched various welfare programs for the farmers, landless, destitute and helpless people. We introduced allowances for destitute people, widower, people with disability, freedom fighters, houses for the old citizens, ‘Asharian’ project for the homeless people and the ‘one house one farm’ project.

The Bangladesh Awami League was defeated by the dubious elections in 2001. The 5-year period after 2001, was a horrific time for Bangladesh Awami League and the common people of the country. Lives of people were intolerable due to killings, rapes, looting, and state sponsored terrorism.

Former Finance Minister Shah AMS Kibria, Member of Parliament Ahsan Ullah Master, Advocate Manjurul Imam of Khulna, Momtaj Uddin of Natore and 21,000 Awami League activists were killed. Hawa Bhaban was created and thousand of crores of taka was smuggled out abroad. Bangla-Bhai, JMB, Harkatul Jihad and many militant groups were created by using the state power.

These militant groups carried out numerous terrorist attacks across the country, including attacks in Udichi Program in Jashore, Bangla New Year’s celebrations at Ramna Batamul, Awami League office in Narayanganj and bombing at CPB meeting in Paltan. They tried to kill British High Commissioner Anwar Chowdhury in Sylhet, former mayor Badar Uddin Ahmed Kamran and Awami League leader Suranjit Sengupta by bomb attacks in Sylhet. On 17th August 2005, they carried out bomb attacks at 500 places simultaneously across the country, killed 10 people in Gazipur bar and 2 judges in Shariatpur in the same year.

On the 21st August in 2004, a brutal grenade attack was launched on an Awami League rally at Bangabandhu Avenue sponsored by the BNP-Jamaat alliance government. Although I personally escaped with the grace of the Almighty, 24 Awami League leaders and activists including Mohila Awami League President Ivy Rahman were killed and more than 500 people injured. Many of the wounded are still living in unbearable pain with numerous splinters in their bodies.

Dear Countrymen,
On the eve of the 11th parliamentary election, we again appear with the election manifesto of Bangladesh Awami League with the slogan ‘Bangladesh in the advancement of prosperity’.

We have prepared our manifesto in such a manner that we can implement it. Likewise, the continuity of the long-term action plans declared in the 2008 and 2014 election manifestos have also been preserved in the 11th Election Manifesto.

The Bangladesh Awami League’s 11th election manifesto has been published in the form of booklet. It is not possible to present it in detail in a short time. I briefly present a few things to you.

3.1 Democracy, Elections and Effective Parliament
In the last ten years, the national parliament was the center point of all national activities. If we are voted to office, we will further strengthen the ongoing process of institutionalization of democracy.

Initiatives will be taken to make the Parliament more effective. At the same time, efforts will be continued to strengthen the Human Rights Commission, Anti-corruption Commission, Media and Judiciary.

3.2 The Rule of Law and Human Rights Protection
Bangladesh Awami League has led a long struggle to restore the rule of law in the country. To improve efficiency and capacity of judges, and establishing justice for common people efforts, including infrastructure development of judiciary, ensuring transparency in the appointment of judges, establishment of rational pay structure and facilities for the judges, establishing village courts, using alternate methods to resolve disputes, and establishing Legal Aid offices in every district, are underway.

We have carried out the trials of the killings of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman, four national leaders, war criminals, the 21st August grenade attack and BDR carnage, and the verdicts have been executed for the arrested ones.

If voted to office, the scope for getting the shelter and assistance of law for all citizens, and conserving and upholding the independence of judiciary, will be given due importance.

Along with ensuring universal human rights, any attempt to trample the human rights will be prevented. Efforts to ensure the independence and effectiveness of Human Rights Commission will continue.

3.3 Skilled, service-oriented and accountable administration
E-governance has been introduced at all levels of administration and `Right to Information Act-2009’ is made effective for making it mandatory to provide public service related information.

The pay and allowances of government officials and employees have substantially been increased for improving their living standard and dignified living. Work on building a modern, technology-based, skilled, corruption-free, patriotic and people-oriented administration will continue. The transparency, accountability, fairness and service of the administration will be ensured.

3.4 People friendly law enforcement agency to be built
To increase the capability of police force, various specialized police units, including industrial police, PBI, Tourist Police, river police, special security and protection battalion, Rangpur range, Rangpur RRF, Mymensingh range, two RAB battalions, Cyber police, Gazipur and Rangpur metropolitan police, Anti-terrorism unit and Counter terrorism and transnational and crime unit, have been formed during the last ten years.

If voted to office, recruitment in law enforcement agencies, including police, will be made proportionate with the population of the country in the next 5 years.

3.5 Zero tolerance policy against corruption
Our campaign against militancy, drug and corruption will continue. We will undertake zero tolerance policy against corruption. Apart from strengthening the Anti-corruption Commission, public awareness programs against corruption will be strengthened. Besides, steps will be taken to bring corruption to zero level utilizing ICT.

3.6 Terrorism, militancy, communality and drug abuse
Our zero tolerance policy against militancy, communality, terrorism and drugs will continue. Highest priority will be given in uprooting terrorism, extortion and land grabbing.

3.7 Local government: People’s empowerment
The UP, Upazila and Zila parishads, Pourashova and city corporations have been strengthened through decentralization of power. The process will further be strengthened.

If we voted to power, more financial and administrative authority will be decentralized to the local government bodies. The government’s assistance and efforts will continue to widen and improve the civic amenities. Steps will be taken to ensure transparency, accountability and peoples participation in planning of land use at towns and cities, planned development and city management.

3.8 Macro economy: High income, sustainable and inclusive development
The GDP growth will be increased to 10% in the next five years. Bangladesh will be a middle income country in 2021, the year when the golden jubilee of our country will be celebrated. The per capita income of the people of Bangladesh will be over US$ 5,479. In 2041, Bangladesh will emerge as a developed country in the comity of nations. The poverty rate will come down to zero.

3.9 Mega projects for infrastructure development
For the first time in the country’s history, ten mega projects are being implemented. These are: Padma bridge, Rooppur Nuclear power plant, Rampal coal-fired power plant, Deep sea port, Dhaka Mass Rapid Development transit project, LNG terminal, Moheshkhali-Matarbari intregreted infrastructure development project, Payra sea port, Padma bridge rail link and construction of Rail truck between Chittagong and Cox’s Bazar. We are committed to implementing these mega projects. Work on the construction of Nuclear power plant is progressing fast. Development work of Payra port is going on. Sonadia deep sea port, Rampal power plant and Matarbari power plant projects are under implementation. The construction of LNG terminal has been completed and supply of LNG to national grid started.

3.10 ‘My village-my town’: Expansion of modern civic amenities at each village
If we voted to power, we will undertake and implement programs aimed at turning villages into towns. The facilities of towns will be reached to villages. In the next five years, electricity will be provided at every house. All villages of the country will be connected with Upazila/Zilla through pucca roads.

Scope for education of the children in improved environment will be ensured. Potable water and improved sanitation will be ensured. Infrastructure for healthy entertainment and sports will be built. For employment, mills and factories will be built at Zila/Upazila levels. Internet and modern technology will be reached all over the country.

3.11 The youths: The strength of youth, prosperity of Bangladesh
The youths are the main driving force to build digital Bangladesh and materialize the golden Bangla of Bangabandhu. Bangladesh Awami League is committed to build an organized, disciplined and production oriented youth force.

The national service program is aimed at creating employment, and the program will be expanded gradually to all Upazilas. Youth training centers will also be set-up in all Upazilas.

An integrated database for less educated, medium educated and higher educated youths will be prepared at national level. We are providing up to two lakh taka collateral-free loan through Karma Shangstan Bank to increase creating entrepreneurship and self-employment. In future, the facilities will be widened.

For ensuring healthy entertainment for the youths, entertainment center will be built at each Upazila and youth sports complex at each district.

If we voted to power, we will create employment opportunities for one crore twenty eight lakh people in the next 5 years. Employment opportunities for one thousand youths and young women from each upazila will be created outside the country.

3.12 Women empowerment
Bangladesh Awami League is committed to establishing equal rights and dignity of women and male at all levels of the states and lives and participation of women and male at all levels of national lives. Child marriage will be decreased to near zero. Equal wage for male and female will be ensured. To encourage women entrepreneurs, separate banking and loan facilities will be ensured.

3.13 Poverty elevation and decrease of inequality
At presents, 4 crore 92 lakh people are getting various financial assistance under social safety-net programs. In the next five years, the number will be doubled and the amount of the assistance will also be increased. Poverty rate will be decreased to 12.3% and that of extreme poverty to 5%.

Regular income for at least one member of a family will be ensured. The implementation of one house one farm project will continue.

The poor people will be provided with soft-term loan to engage themselves in income-generating activities.

3.14 Agriculture, food and nutrition: Achievement of food security.
The unprecedented success of increasing agricultural production in Bangladesh and achieving food self-sufficiency is lauded by the world community. Efforts will be made to continue the success of increased agricultural production and achieving food-autarky.

Subsidy in agricultural inputs will continue. The agricultural equipments will be made easily available and cheaper. A skilled supply chain/value chain for agricultural products and crop processing will be built. Allocation in the budget for agricultural research will be increased. Soft-term loan, subsidy, technological and policy support for small and medium-sized milk and poultry farms and fish cultivation will be widened.

3.15 Power and energy
The power generation capacity in 2009 was 4,900 megawatt and daily supply was 3,200 megawatt. At present electricity production capacity is 20,400 megawatt. Electricity will be ensured for all by 2020. By 2023, the power generation capacity will be 28 thousand megawatt and 5 thousand CFT LNG supply will be ensured.

3.16 Industrial development
We have been putting emphasis on labor intensive small and medium industries for creating employment. We have undertaken programs to setup 100 economic zones under public and private initiatives. So far, policy decision to establish 89 zones have been undertaken and work on 14 zones is progressing. The economic zones will add additional US$ 40 billion in the export earning and create nearly 10 million jobs.

Financial incentives in the exports of jute goods will continue. Facilities will be given to agro processing sectors.
Modern industrial city will be built on the banks of the river Padma. IT parks will be established in each divisional city where a huge number of youths will be employed in next five years.

3.17 Labor welfare and labor policy
Minimum wage for the laborers of 40 sectors out of 43 sectors has been restructured. Minimum wage for garments workers has been increased to 8 thousand from 1600 taka in 2008. Steps have been taken to remove inequality of wages between female and male. All basic rights of the workers will be protected. 4-month maternity leave with full salary for female workers will be materialized. The ongoing health care and housing facility, security at work place and entertainment facilities will continue. Rationing system for all workers and hardcore poor and rural landless farm laborers will be introduced.

3.18 Education
We have formulated an education policy acceptable to all. From 2010 to date, we have distributed 260 crore 85 lakh 91 thousand textbooks among students up to secondary level.

One technical institute will be established at each Upazila. Work on one hundred such institutes is progressing. Highest budget allocation will be ensured for education sector and all out steps will be taken for improving the standard of education. School-feeding program will gradually be introduced at all villages, semi-muffashal towns and for the poor. The ongoing stipend programs from primary to higher education level will be continued. The madrasha education will be harmonized with the main stream education. The Daware Hadith of Kawmi Madrasha has been given the status of master’s degree.

Education in the languages of the ethnic groups will be ensured and their books will be distributed at free of cost. The inequality which exists in some cases, including the pay scale of the government primary teachers will be resolved judiciously.

3.19 Health service and family welfare
At present the rural people are getting healthcare service from nearly 16,500 community clinics across the country. 30 various kinds of medicines are also being distributed at free of cost. The average life expectancy is increased to 72.8 years from 68.8 years in 2009.

Children under 1 year and citizens over 65 years will get health service at free of cost.
One medical university will be setup at each divisional city. The facility of community clinics including its building will be modernized.

3.20 Communication
During the last 10 years revolutionary changes have taken place in the communication sector. The Roads and Highway department have completed works of solidification, expansion, carpeting or rehabilitation of 24 thousand km of highways. So far, 420 km national highways, including Dhaka-Chattagram, Dhaka-Mymensingh and Nabinagar-Chandra, have been upgraded to 4-lanes or more than 4 lanes. An 80 km marine drive from Cox’s Bazar to Teknaf has been constructed. Some 914 bridges and 3,977 culverts were constructed or reconstructed during the period.

Under the Local Government and Engineering Department, some 52,280 km roads have been renovated. Besides, maintenance work on 75,773 km roads and 31,637 meter bridge/culverts was carried out. Some 301,311 meter bridge/culverts were constructed or reconstructed. To modernize the communication system of Dhaka city, Metro Rail is being implemented under Dhaka Mass Rapid Transit development project.

The work on Uttara-Agargaon portion will be completed by 2019 and that of up to Bangladesh Bank by December 2020. The 3rd phase from Pallabi to Uttara will be completed by 2022.

The 47 km 4-lane Dhaka Elevated Expressway from Hazrat Shahjalal International Airport to Kutubkhali of Narayangonj will be constructed in three phases.

Another 35 km long elevated express way from Airport to Chandra via Ashulia will be constructed. Besides, a 40 km elevated expressway styled as East-West Elevated Expressway will be constructed between Hemayatpur of Savar and Madanpur of Narayanganj.

Bullet trains between Dhaka and divisional cities will be introduced.

In the next 5 years 10 thousand km of waterways will be brought under dredging. The four rivers around Dhaka will be re-excavated.

A new international airport will be set up. The existing domestic and international airports will be modernized.

Modern bus service will be introduced in the capital for bringing discipline in mass transport system.

Underpass/overpasses will be constructed adjacent to educational institutions situated near highways. A tunnel will be constructed under the river Jamuna for easing communication with northern region.

3.21 Digital Bangladesh: ICT
Some 200 digital services are being provided to the people through 5,737 digital centers and 8,200 e-post offices.

Optical fibre has been expanded up to union level. Bangladesh entered into the era of space science through sending Bangabandhu Satellite-1 in the Orbit.

If we are voted to office, we will introduce 5-G by 2021-23. The price of internet and mobile usage will be reduced to a reasonable level.

3.22 Sea Conquest: Blue-Economy-opened the horizon of development
A scope has been created for huge employment in the economic activities in the sea, maritime tourism industry etc with the settlement of maritime disputes with Myanmar and India.

If we take responsibility, we will ensure the maximum use of sea resources.

3.23 Climate Change and Environmental Protection
In 2009, Bangladesh prepared Climate Change Strategy and Action Plan and 145 action plans were undertaken. Bangladesh Climate Change Trust Fund with about 400 million dollar has been set up with our own fund.

In order to help the affected people due to climate change, the allocation for ‘Bangladesh Climate Trust Fund’ will further be increased. The size of the productive forest will be increased from 13.14 percent in 2015 to 20 percent.

4.24 Child Welfare
Today’s Child is our future. Strengthening social security, and health, education, scholarships and various activities will be developed and expanded aimed at ending child labour. Vocational education system will also be improved and expanded. Moreover, rehabilitation of street children and their safe accommodation, establishment of childcare for poor and destitute children and compulsory primary education for them will be introduced.

3.25 The Disabled and Senior Citizens’ Welfare
Good health, education, dignity and safe future for all children with disability will be ensured. Special measures will be taken to ensure the education, employment, mobility, communication, treatment of the disabled people and their social status will be upgraded.

Income generating programs in possible sector and proper measures to create awareness and responsibilities for the senior citizens will be taken.

3.26 Freedom Fighters’ Welfare and the implementation of the Sprit of Liberation War
Our government has already introduced elderly freedom fighters’ old-age maintenance cost-free and free health care services. The government has also started free travel facilities in rail, bus and launch for freedom fighters at the age of 60 or above as respected citizens. These activities will be continued.

Special actions will be taken to protect the memories of the Liberation War throughout the country, prevent distortion of history and to protect genuine history. The mass killing sites and mass graves during liberation war will be identified. The names and details of martyrs will be found out and memorials will be established across the country.

3.27 Religion and Culture
As per the constitution, all citizens will be guaranteed freedom of religion. ‘The religion belongs to individual but the festivals for all’- the policy will be upheld. Bangladesh will be built in a non-communal spirit.
There will be no law against the Quraan and Sunnah. 560 mosque-cum-Islamic Cultural Centers will be built across the country.

In order to preserve and develop non-communal and democratic traditions of Bangalee culture, the policy and action plan followed by the Awami League government will be continued. State sponsorship will be expanded to increase the continuous excellence and practice of all sections of the industries including Bangla language, literature, arts and crafts, music, Jatra, drama, film and creative publications.

3.28 Games and Sports
The glorious position of Bangladesh in the world of cricket will be further strengthened. Efforts will be taken for all games and sports including football and hockey to reach international standard. Planned activities will be taken for the development of sports management, infrastructural facilities, and expansion of training facilities. Construction of mini stadium in each upazila will be completed.

2.29 Ethnic Groups, Religious Minorities and Backward Communities
Initiatives will be taken to implement those sections of the CHT Peace Accord which have not yet been implemented. The right of the original proprietors will be reinstated in the land within the prescribed time. National Minority Commission will be constituted. All kinds of laws and systems for discrimination towards ethnic minorities and ethnic groups will be terminated.

3.30 Independence of mass media and free flow of information
Effective Measures will be taken to prevent propagation of fake news and unexpected rumor. The journalism and news media which are loyal to social liabilities will be promoted from the government side.

Inspiration for investigating journalism and necessary training for the journalists will be given. The security of journalists and media staff will be ensured for their professional duties.

Media friendly Act will be formulated. There will be no misuse of any law against journalist and mass media.

3.31. Defense: Security, Sovereignty and Integrity Protection
We have formulated and are implementing the Forces Goal-2030. Army, Naval and Air force are provided with modern weapons, vehicles and technologies.

In addition to this, we have taken initiative to increase the efficiency of members of the armed forces. Three cantonments in Sylhet, Ramu (Cox’s Bazar) and Barishal have been established. We have established many units including 3 infantry divisions and Padma Bridge composite Brigade.

If we elected, our policy of safeguarding the Armed forces from all controversies will be continued. The ongoing process of modernization of Army, Navy and Air Forces will be continued.

3.32. Foreign Affairs
The image of Bangladesh has been brightened during the last 10 years. We have been directed our Foreign Policy based on “ Friendship to All, Malice to None’’ as introduced by Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman.

We have peacefully resolved the dispute of maritime boundary with India and Myanmar. The misery of the inhabitants in the enclaves has been removed through implementing the Land Boundary Agreement with India.

If we form government, we will continue our efforts to have just share of the waters of all common rivers, including Teesta, and bilateral trade and security cooperation with India. The bilateral cooperation with neighboring countries will be increased.

We would continue our policy not to shelter any militant, international terrorist and separatist in our soil.
More than 1.1 million Rohingyas were forced to enter into Bangladesh to escape tortures in Myanmar. We have extended our assistance towards them for humanitarian grounds. Bangladesh is lauded by the world community for this humanitarian decision.

We are trying our best in various bi-lateral, regional and international forums, in addition to bi-lateral discussion, to send them safely and with dignity to their country.

3.33. NGO
Non-government organizations will be conducted autonomously according to their own rules and regulations. The coordination between nongovernment organizations and government/local government bodies will be enhanced.

4. Achievement of MDGs and Implementation of SDGs
Bangladesh achieved success in attaining 4 goals of MDGs like poverty and hunger elimination, gender balance and empowering women, reduction of child mortality rate, and maternity health development. The SDG goals will be achieved through incorporating it with the 7th 5-Year Plan.

5. Delta Plan 2100
We have taken 100 years plan styled as `Delta Plan 2100’’ for facing the challenges of climate change to achieve the desired development of our country. This plan will be helpful in attaining middle income country by 2030 and developed one by 2041. Delta Plan 2100 will create a necessary link between the short-term, mid-term and long-term planning.

Dear Countrymen,
We don’t believe in word but in deeds. The commitment of this time, we will ensure sustainable investment and inclusive development.

It’s clear as daylight that the people of Bangladesh prosper when Awami League runs the government. Opportunities and potential of livelihoods and welfare of general people are created.

To err is human. There may be mistakes from my part or my colleagues while discharging duties. I, on my own behalf and on behalf of my party, would like to request the countrymen to forgive such mistakes.

I promise that we will build a brighter future taking lessons from the past. We will build a hunger-, poverty- and illiteracy-free secular Sonar Bangladesh as dreamt by the Father of the Nation.

Dear Countrymen
I have nothing to personally seek. I have lost my father, mother, brothers and relatives. My politics is only for fulfilling the dream of the Father of the Nation and for the welfare of my people.

My only aim is to create an environment where the general people will get better and developed lives.

We will celebrate the 100th anniversary of our Father of the Nation’s birth in 2020 and the Golden Jubilee of our country’s independence in 2021. Only Awami League, the party that led the war of liberation, may take the country forward at these glorious moments. If any anti-liberation force is in power at that time, it would be a disgrace for our liberation war and freedom fighters.

So, my earnest appeal to the countrymen, please cast your valuable votes in favour of Awami League and ensure our victory on the 30th December. If you cast your vote for boat, we will ensure development and prosperity.

47 years ago, Bangalee earned victory on the 16th December in 1971 through a 9-month long bloody war. I have faith on our people that Bangalee will make victory of boat, the symbol of independence, through the ballot on 30th December in 2018. Victory is ours, Insha Allah.

I wish you all good health. May the Almighty Allah be kind on us all.

Khoda Hafez.
Joi Bangla, Joi Bangabandhu
May Bangladesh Live Forever.

নির্বাচনী ইশতেহার-২০১৮

নির্বাচনী ইশতেহার-২০১৮
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

ভাষণ
শেখ হাসিনা
সভাপতি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেল, ঢাকা।
মঙ্গলবার
৪ পৌষ ১৪২৫
১৮ ডিসেম্বর ২০১৮

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম
প্রিয় সহকর্মীবৃন্দ,
আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ,
প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিবৃন্দ।
সুধিমণ্ডলী।

আসসালামু আলাইকুম।
আপনাদের সবাইকে বিজয়ের মাসের শুভেচ্ছা।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবাইকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। টেলিভিশন এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সহায়তায় দেশবাসী এবং দেশের বাইরে যাঁরা এই অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন, তাঁদেরও শুভেচ্ছা ও আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

আমি গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কে। স্মরণ করছি ১৯৭৫ সালের ৩রা নভেম্বর জেলখানায় নিহত জাতীয় চার নেতা – সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমেদ, ক্যাপটেন এম মনসুর আলী এবং এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান কে। শ্রদ্ধা জানাচ্ছি মহান মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহিদ এবং ২ লাখ নির্যাতিত মা বোন কে। যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এবং শহিদ পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানাচ্ছি। মুক্তিযোদ্ধাদের জানাচ্ছি সালাম।

আমি গভীর বেদনার সঙ্গে স্মরণ করছি ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টের ঘৃণ্য হত্যাকাণ্ডের শিকার আমার মা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব, আমার তিন ভাই- ক্যাপ্টেন শেখ কামাল, লেফটেন্যান্ট শেখ জামাল ও দশ বছরের শেখ রাসেল, কামাল ও জামালের নবপরিণীতা স্ত্রী সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, বঙ্গবন্ধুর সহোদর শেখ নাসের, বঙ্গবন্ধুর সামরিক সচিব ব্রিগেডিয়ার জামিলসহ সেই রাতের সকল শহিদকে।

আজকের দিনে আমি শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি এ উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক, গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশসহ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা নেতৃবৃন্দকে।

বাংলা ভাষার মর্যাদা রক্ষার জন্য যাঁরা অকাতরে জীবন দিয়েছেন সেই ভাষা শহিদদের প্রতি আমি গভীর শ্রদ্ধা জানাচ্ছি।

স্মরণ করছি, ২০০৪ সালের ২১-এ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় নিহত আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভী রহমানসহ ২২ নেতা-কর্মীকে।

স্মরণ করছি ২০০১ সালের পর বিএনপি-জামাত জোটের সন্ত্রাসীদের হাতে নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ.এম.এস কিবরিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা আহসানউল্লাহ মাস্টার, মঞ্জুরুল ইমাম, মমতাজউদ্দিনসহ ২১ হাজার নেতাকর্মীকে।

২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচনকালে এবং ২০১৫ সালের ৪ঠা জানুয়ারি থেকে বিএনপি-জামাত জোট পরিচালিত অগ্নি সন্ত্রাস ও সহিংসতায় যাঁরা জীবন দিয়েছেন, তাঁদের গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করছি। আমি নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি এবং আহতদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি।

সেলিম, দেলোয়ার, নূর হোসেন, বাবুল, ফাত্তাহ, রাউফুন বসুনিয়াসহ স্বৈরাচার বিরোধী এবং ভাত ও ভোটের অধিকার আদায়ের আন্দোলনের সকল শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাচ্ছি।

প্রিয় দেশবাসী,
২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনের পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার টানা ১০ বছর রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পালন করছে। ২০০৮ সালের ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগণ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে বিপুলভাবে বিজয়ী করে। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং জাতির পিতার জন্মশতবার্র্ষিকীকে লক্ষ্য করে আমরা নির্বাচনী ইশতেহার রূপকল্প-২০২১ ঘোষণা করেছিলাম। যার মূল লক্ষ্য ছিল মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ঘটিয়ে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করা।

২০১৪ সালে দশম নির্বাচনের আগে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার করে রূপকল্প ২০৪১ ঘোষণা করেছিলাম। আপনারা ৫ই জানুয়ারির নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মত সরকার পরিচালনার ম্যান্ডেট দিয়ে সেই রূপকল্প বাস্তবায়নের কর্মযজ্ঞকে এগিয়ে নেওয়ার সুযোগ করে দিয়েছেন। সাফল্যের সবটুকু আপনাদের অবদান।
সুধী,
আজকের বাংলাদেশ আর্থিক দিক থেকে যেমন শক্তিশালী, তেমনি মানসিকতার দিক থেকে অনেক বলীয়ান। ছোট-খাটো অভিঘাত বাংলাদেশের অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে দিতে পারবে না।

২০১৫ সালে বিশ্ব ব্যাংক বাংলাদেশকে নিম্নমধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা দিয়েছে। ২০১৮ সালের মার্চ মাসে জাতিসংঘ বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদায় উন্নীত করেছে।

মাথাপিছু আয় ২০০৬ সালের ৫৪৩ ডলার থেকে বেড়ে ১ হাজার ৭৫১ ডলারে উন্নীত হয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩ বিলিয়ন ডলার থেকে বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে ৩৩ বিলিয়ন ডলারের উপর। দারিদ্র্যের হার ২০০৬ সালের ৪১.৫ শতাংশ থেকে ২১.৮ শতাংশে হ্রাস পেয়েছে।

অর্থনৈতিক অগ্রগতির সূচকে বিশ্বের শীর্ষ ৫টি দেশের একটি আজ বাংলাদেশ। বিগত দশ বছরে বাংলাদেশের জিডিপি’র আকার প্রায় ৫ গুণেরও বেশি বৃদ্ধি পেয়ে ৪ লাখ ৮২ হাজার কোটি থেকে প্রায় ২২ লাখ ৫০ হাজার ৪৭৯ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। বিশ্ব ব্যাংকের পরিসংখ্যান অনুসারে ক্রয়ক্ষমতার ভিত্তিতে বাংলাদেশের অর্থনীতি বিশ্বের মধ্যে ৩১তম। এইচ.বি.এস.সি’র প্রক্ষেপণ অনুযায়ী ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ বিশ্বের ২৬তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ হবে।

২০০৫-০৬ অর্থবছরে বাজেটের আকার ছিল ৬১ হাজার কোটি টাকা। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে বাজেটের পরিমাণ প্রায় ৭.৬ গুণ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা।

২০০৫-০৬ অর্থবছরে রপ্তানি আয় ছিল মাত্র ১০.৫২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৩৬.৬৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। ২০২১ সাল নাগাদ ৬০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রপ্তানি আয়ের লক্ষ্য নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।

প্রিয় দেশবাসী,
বাংলাদেশ ভূখণ্ডের যা কিছু মহৎ অর্জন ও প্রাপ্তি, সবকিছু অর্জিত হয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে। ১৯৪৮ সালের ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে বাংলাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় অভিষিক্ত করা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধিকার এবং স্বাধীনতা সংগ্রাম, সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা অর্জন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে স্বৈরাচার উৎখাত এবং ভোট ও ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার আগে তিনি মাত্র সাড়ে তিন বছর রাষ্ট্র পরিচালনার সুযোগ পেয়েছিলেন।

শূন্য কোষাগার, বিচ্ছিন্ন যোগাযোগ ব্যবস্থা, বন্ধ কলকারখানা নিয়ে জাতির পিতা পথচলা শুরু করেছিলেন। এক কোটি শরণার্থীকে দেশে ফিরিয়ে এনে তাঁদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করা ছিল এক দুরূহ কাজ। তার উপর শুরু হয় বাংলাদেশের বিরুদ্ধে দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র। এসব প্রতিবন্ধকতা এবং ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে মাত্র সাড়ে তিন বছরে দেশকে অনেকটা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে এনেছিলেন। বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশের তালিকাভুক্ত হয়েছিল। আর তখনই দেশের অগ্রযাত্রাকে স্তব্ধ করে দেওয়ার জন্য জাতির পিতাকে হত্যা করা হয়। তাঁর হত্যার পর ১৯৭৫ পরবর্তী শাসকেরা বাংলাদেশকে পর-নির্ভরশীল, ভিক্ষুকের দেশে পরিণত করেছিল।

১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ সাল। এ সময়ে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের পরিচিতি ছিল বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র দেশ হিসেবে। বাংলাদেশ মানেই ছিল বন্যা, খরা, জলোচ্ছাস, কঙ্কালসার মানুষের দেশ।

একুশ বছর পর ১৯৯৬ সালে ১২ই জুনের সাধারণ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। একুশ বছর পর আবার বাংলাদেশের মানুষ মুক্তির স্বাদ পায়, জনগণের সরকার পায়।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল। এই ৫ বছর ছিল বাংলাদেশের মানুষের জন্য স্বর্ণযুগ। আর্থ-সামাজিক খাতে দেশ অভূতপূর্ব অগ্রগতি অর্জন করে। এ সময় আমরা পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি এবং ভারতের সঙ্গে ৩০-বছর মেয়াদী গঙ্গা নদীর পানি চুক্তি স্বাক্ষর করি। যমুনা নদীর উপর বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণ করি এবং খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ং-সম্পূর্ণতা অর্জন করি।

এছাড়া, কৃষকদের জন্য বিভিন্ন কল্যাণমূলক কর্মসূচি গ্রহণ করি। দুস্থ-অসহায় মানুষের জন্য দুস্থ ভাতা, স্বামী-পরিত্যক্তা ও বিধবা মহিলাদের জন্য ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা, বয়স্কদের জন্য শান্তি নিবাস, আশ্রয়হীনদের জন্য আশ্রয়ণ প্রকল্প, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প ইত্যাদি কর্মসূচি চালু করি।

২০০১ সালের ষড়যন্ত্রমূলক নির্বাচনের মাধ্যমে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে পরাজিত করা হয়। ২০০১-পরবর্তী ৫ বছর ছিল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং এ দেশের সাধারণ মানুষের জন্য এক বিভিষীকাময় সময়। হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসে জনজীবন ছিল অতিষ্ঠ।
সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া, সংসদ সদস্য আহসান উল্লাহ মাস্টার, খুলনার এডভোকেট মঞ্জুরুল ইমাম, নাটোরের মমতাজ উদ্দিনসহ ২১ হাজার আওয়ামী লীগ নেতা কর্মীকে হত্যা করা হয়। হাওয়া ভবন তৈরি করে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট এবং বিদেশে পাচার করা হয়। রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলা-ভাই, জেএমবি, হরকাতুল জিহাদসহ নানা জঙ্গিগোষ্ঠি সৃষ্টি করা হয়।

যশোরে উদীচির অনুষ্ঠান, রমনার বটমূলে বাংলা নববর্ষের অনুষ্ঠান, নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ অফিস এবং পল্টনে সিপিবি’র সভায় বোমা হামলা, সিলেটে ব্রিটিশ হামকমিশনার আনোয়ার চৌধুরী, সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমেদ কামরান ও আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে বোমা হামলা করে হত্যা চেষ্টা, ২০০৫ সালের ১৭ই আগস্ট সারাদেশে প্রায় ৫শো স্থানে একযোগে বোমা হামলা, একই বছর গাজীপুরে বার ভবনে বোমা মেরে ১০ জন হত্যা, শরীয়তপুরে দুই বিচারক হত্যাসহ সারাদেশে অসংখ্য সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে এসব জঙ্গি গোষ্ঠি।

২০০৪ সালের ২১-এ আগস্ট বিএনপি-জামাত জোট সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় আওয়ামী লীগের র‌্যালিতে নৃশংস গ্রেনেড হামলা চালোনো হয়। আল্লাহর অশেষ রহমতে আমি ব্যক্তিগতভাবে প্রাণে রক্ষা পেলেও মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিরীহ মানুষ নিহত হয় এবং ৫০০-এর বেশি মানুষ আহত হয়। আহতদের অনেকেই এখনও শরীরে অসংখ্য স্প্রিন্টার নিয়ে অসহ্য যন্ত্রণায় জীবনযাপন করছেন।

প্রিয় দেশবাসী,
একাদশ নির্বাচনকে সামনে রেখে আমরা আবারও ‘সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ শ্লোগান সংবলিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনি ইশতেহার নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি।

আমরা আমাদের ইশতেহার এমনভাবে তৈরি করেছি যাতে আমরা তা বাস্তবায়ন করতে পারি। একইসঙ্গে ২০০৮ এবং ২০১৪ সালের নির্বাচনি ইশতেহারে ঘোষিত দীর্ঘমেয়াদি কর্মপরিকল্পনাগুলোর ধারাবাহিকতা ২০১৮-এর নির্বাচনি ইশতেহারেও রক্ষিত হয়েছে।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনি ইশতেহার পুস্তিকারে প্রকাশ করা হয়েছে। এখানে এই স্বল্প সময়ে তা সবিস্তারে তুলে ধরা সম্ভব নয়। আমি সংক্ষিপ্তাকারে কয়েকটি বিষয়গুলো আপনাদের সামনে উপস্থাপন করছি।

৩.১ গণতন্ত্র, নির্বাচন ও কার্যকর সংসদ
বিগত দশ বছরে জাতীয় সংসদই ছিল সকল রাষ্ট্রীয় কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রবিন্দু। আমরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হলে গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিকীকরণের চলমান প্রক্রিয়াকে আরও জোরদার করব।
সংসদকে আরও কার্যকর করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। একইসঙ্গে মানবাধিকার কমিশন, দুর্নীতি দমন কমিশন, গণমাধ্যম, বিচারবিভাগকে আরও শক্তিশালী করার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

৩.২ আইনের শাসন ও মানবাধিকার সুরক্ষা
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দেশে আইনের শাসন পুনঃপ্রতিষ্ঠার দীর্ঘ সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছে। বিচার বিভাগের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বিচারক নিয়োগের পদ্ধতির স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণ, বিচারকদের জন্য যৌক্তিক বেতন কাঠামো ও সুযোগ সুবিধা নির্ধারণ, গ্রাম আদালত প্রতিষ্ঠা, বিরোধ নিরসনে বিকল্প পদ্ধতির ব্যবহার, প্রতি জেলায় লিগ্যাল এইড স্থাপনসহ বিচারকদের দক্ষতা ও সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং সাধারণ মানুষের জন্য ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার কাজ এগিয়ে চলছে।

আমরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারীদের বিচার, জাতীয় চার নেতার হত্যার বিচার, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, ২১-এ আগস্ট গ্রেনেড হামলার বিচার, বিডিআর হত্যাকাণ্ডের বিচার করেছি এবং গ্রেফতারকৃত দণ্ডিতদের বিচারের রায় কার্যকর করা হয়েছে।
নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠনের সুযোগ পেলে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা সংরক্ষণ ও মর্যাদা সমুন্নত রেখে প্রত্যেক নাগরিকের আইনের আশ্রয় ও সাহায্য সহায়তা লাভের সুযোগ-সুবিধা অবারিত করা হবে।
সর্বজনীন মানবাধিকার সুনিশ্চিত করার পাশাপাশি মানবাধিকার লক্সঘনের যে কোন প্রচেষ্টা প্রতিহত করা করা হবে। মানবাধিকার কমিশনের স্বাধীনতা এবং কার্যকারিতা নিশ্চিত করার ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে।

৩.৩ দক্ষ, সেবামুখী ও জবাবদিহিতামূলক প্রশাসন
প্রশাসনের সর্বস্তরে ই-গভর্নেন্স চালু করা হয়েছে এবং জনসেবা সম্পর্কিত তথ্য প্রদানের বাধ্যবাধকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ‘তথ্য অধিকার আইন-২০০৯’ কার্যকর করা হয়েছে।

সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন এবং সম্মানজনকভাবে জীবনধারণের জন্য বেতন-ভাতা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি করা হয়েছে। একটি আধুনিক, প্রযুক্তিনির্ভর, দক্ষ দুর্নীতিমুক্ত দেশপ্রেমিক গণমুখী প্রশাসনিক ব্যবস্থা গড়ে তোলার কাজ অব্যাহত থাকবে। প্রশাসনের স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, ন্যায়-পরায়ণতা এবং জনসেবাপ্রাপ্তি নিশ্চিত করা হবে।

৩.৪ জনবান্ধব আইন-শৃক্সখলা বাহিনী গড়ে তোলা
পুলিশের সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে গত ১০ বছরে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ, পিবিআই, ট্যুরিস্ট পুলিশ, নৌ পুলিশ, স্পেশাল সিকিউরিটি অ্যান্ড প্রটেকশন ব্যাটালিয়ন, রংপুর রেঞ্জ, রংপুর আরআরএফ, ময়মনসিংহ রেঞ্জ, ২টি র‌্যাব ব্যাটালিয়ন, সাইবার পুলিশ এবং গাজীপুর ও রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ, এন্টি টেররিজম ইউনিট এবং কাউন্টার টেররিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটসহ বিভিন্ন বিশেষায়িত পুলিশ ইউনিট গঠন করা হয়েছে।

নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পেলে আগামী ৫ বছরে জনসংখ্যার আনুপাতিক হারে পুলিশসহ আইনশৃংখলা বাহিনীতে জনবল নিয়োগ করা হবে।

৩.৫ দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ
জঙ্গিবাদ, মাদক এবং দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। আমরা দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করব। দুর্নীতি প্রতিরোধে দুর্নীতি দমন কমিশনকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম জোরদার করা হবে।

আধুনিক তথ্য ও প্রযুক্তি চালুর মাধ্যমে দুর্নীতির পরিধি ক্রমান্বয়ে শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা হবে।

৩.৬ সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা ও মাদক নির্মূল
জঙ্গিবাদ, সাম্প্রদায়িকতা, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতির প্রতি আমাদের দৃঢ় অবস্থান অব্যাহত থাকবে। সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি, দখলদারি বন্ধে সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করা হবে

৩.৭ স্থানীয় সরকার: জনগণের ক্ষমতায়ন
ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ করে ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা পরিষদসহ পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনকে শক্তিশালী করা হয়েছে। এই প্রক্রিয়াকে আরও শক্তিশালী করা হবে।

আমরা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হলে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহকে অধিকতর আর্থিক ও প্রশাসনিক ক্ষমতা প্রদান করা হবে। নাগরিক সুযোগ-সুবিধা উন্নত ও প্রসারিত করার জন্য সরকারের সাহায্য ও উদ্যোগ অব্যাহত থাকবে। নগর ও শহরে ভূমি ব্যবহার পরিকল্পনা, পরিকল্পিত উন্নয়ন এবং নগর ব্যবস্থাপনায় অধিকতর স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও জনগণের অধিকতর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হবে।

৩.৮ সামষ্টিক অর্থনীতি: উচ্চ আয়, টেকসই ও অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন
আগামী ৫ বছরে জিডিপি ১০ শতাংশে উন্নীত করা হবে। ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনকালে বাংলাদেশ হবে মধ্যম আয়ের দেশ। ২০৩০ সালে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে ৫ হাজার ৪৭৯ ডলারেরও বেশি। ২০৪১ সালে উন্নত দেশ হিসেবে বিশে^র বুকে মাথা তুলে দাঁড়াবে বাংলাদেশ। দারিদ্র্যের হার নেমে আসবে শূন্যের কোঠায়।

৩.৯ অবকাঠামো উন্নয়নে বৃহৎ প্রকল্প (মেগা প্রজেক্ট)
দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মত ১০টি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এগুলো হচ্ছে: পদ্মাসেতু, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, গভীর সমুদ্র বন্দর, ঢাকা মাস-র‌্যাপিড ট্রানজিট প্রকল্প, এলএনজি টার্মিনাল, মহেষখালী-মাতারবাড়ি সমন্বিত অবকাঠামো উন্নয়ন কার্যক্রম, পায়রা সমুদ্র বন্দর, পদ্মাসেতু রেল সংযোগ এবং চট্রগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইন স্থাপন।

আওয়ামী লীগ এসব মেগা প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নে দৃঢ়সঙ্কল্প। পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। পায়রা বন্দরের পরিপূর্ণ উন্নয়নের কাজ চলমান রয়েছে। সোনাদিয়া গভীর সমুদ্রবন্দর, রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প, মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। এলএনজি টার্মিনাল বাস্তবায়িত হয়েছে। ইতোমধ্যে জাতীয় গ্রিডে এলএনজি গ্যাস সরবরাহ শুরু হয়েছে।

৩.১০ ‘আমার গ্রাম – আমার শহর’: প্রতিটি গ্রামে আধুনিক নগর সুবিধা সম্প্রসারণ
আমরা নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করলে প্রতিটি গ্রামকে শহরে উন্নীত করার কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করব। শহরের সুবিধা গ্রামে পৌঁছে দিব। আগামী ৫ বছরে দেশের প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে যাবে। পাকা সড়কের মাধ্যমে সকল গ্রামকে জেলা/উপজেলা শহরের সঙ্গে সংযুক্ত করা হবে।
ছেলেমেয়েদের উন্নত পরিবেশে লেখাপড়ার সুযোগ তৈরি করা হবে। সুপেয় পানি এবং উন্নতমানের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। সুস্থ বিনোদন এবং খেলাধুলার জন্য অবকাঠামো গড়ে তোলা হবে। কর্মসংস্থানের জন্য জেলা/উপজেলায় কলকারখানা গড়ে তোলা হবে। ইন্টারনেট/তথ্য প্রযুক্তি সর্বত্র পৌঁছে যাবে।

৩.১১ তরুণ যুবসমাজ: ‘তারুণ্যের শক্তি, বাংলাদেশের সমৃদ্ধি’
‘সোনার বাংলা’-এর স্বপ্ন বাস্তবায়ন ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রধানতম শক্তি হচ্ছে যুবশক্তি। দেশের এই যুবগোষ্ঠিকে সুসংগঠিত, সুশৃক্সখল এবং উৎপাদনমুখী শক্তিতে রূপান্তরের লক্ষ্য অর্জনে আওয়ামী লীগ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

তরুণদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচি পর্যায়ক্রমে দেশের প্রতিটি উপজেলায় প্রসারিত করা হবে। প্রতিটি উপজেলায় ‘যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র’ স্থাপন করা হবে। জাতীয় পর্যায়ে স্বল্প, মধ্যম ও উচ্চ শিক্ষিত তরুণদের তথ্য সম্বলিত একটি ইন্টিগ্রেটেড ডাটাবেইজ তৈরি করা হবে। তরুণদের মধ্যে উদ্যোক্তা হওয়ার প্রবণতা ও আত্মকর্মসংস্থান বৃদ্ধি করতে কর্মসংস্থান ব্যাংক এর মাধ্যমে বিনা জামানতে ও সহজ শর্তে জনপ্রতি দুই লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ সুবিধা ইতোমধ্যে প্রদান করা হচ্ছে। ভবিষ্যতে এই সুবিধা আরও বিস্তৃত করা হবে।

তরুণদের সুস্থ বিনোদনের জন্য প্রতিটি উপজেলায় গড়ে তোলা হবে একটি করে ‘যুব বিনোদন কেন্দ্র’। প্রতিটি জেলায় একটি করে ‘যুব স্পোর্টস কমপ্লেক্স’ গড়ে তোলা হবে।

নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করতে পারলে আমরা আগামী ৫ বছরে ১ কোটি ২৮ লাখ কর্মসৃজনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। প্রতি উপজেলা থেকে প্রতিবছর গড়ে ১ হাজার যুব/যুব মহিলাকে বিদেশে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে।

৩.১২ নারীর ক্ষমতায়ন
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ‘জাতীয় জীবনের সর্বস্তরে মহিলাদের অংশগ্রহণ’ এবং রাষ্ট্র ও জনজীবনের সর্বস্তরে নারী-পুরুষের সমান অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় বদ্ধপরিকর। নারীর প্রতি সকল বৈষম্যমূলক আচরণ/প্রথা বিলোপ করা হবে। বাল্যবিবাহ শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা হবে। কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষের সমান মজুরি নিশ্চিত করা হবে। নারী উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করতে আলাদা ব্যাংকিং ও ঋণ সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।

৩.১৩ দারিদ্র্য বিমোচন ও বৈষম্য হ্রাস
বর্তমানে সামাজিক সুরক্ষার আওতায় ৪ কোটি ৯২ লাখ মানুষ বিভিন্ন প্রকার আর্থিক সহযোগিতা পাচ্ছেন। আগামি ৫ বছরে এই সংখ্যা দ্বিগুণ করা হবে এবং সকলের ভাতার পরিমাণ বাড়ানো হবে। দারিদ্র্যের হার ১২.৩ শতাংশ এবং চরম দারিদ্র্যের হার ৫ শতাংশে নামিয়ে আনা হবে।
প্রতিটি পরিবারে অন্তত একজনের নিয়মিত রোজগার নিশ্চিত করা হবে। একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প বাস্তবায়ন অব্যাহত থাকবে। সহজ শর্তে দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে ঋণ প্রদানের মাধ্যমে আয়বর্ধকমূলক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করা হবে।

৩.১৪ কৃষি, খাদ্য ও পুষ্টি: খাদ্য নিরাপত্তা অর্জনে নিশ্চয়তা
বাংলাদেশে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ও খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের অভূতপূর্ব সাফল্য বিশ্ববাসীর নজর কেড়েছে।
কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি ও খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের সফল ধারা অব্যাহত রাখা হবে। কৃষি উপকরণের উপর ভর্তুকি অব্যাহত রাখা হবে। কৃষি যন্ত্রপাতি সুলভ ও সহজপ্রাপ্য করা হবে। কৃষিপণ্যের ন্যায্য দাম নিশ্চিত করা হবে। ফসল প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং কৃষিপণ্যের দক্ষ সাপ্লাই চেন/ভ্যালু চেইন গড়ে তোলা হবে। কৃষি গবেষণায় বাজেট বরাদ্দ আরও বাড়ানো হবে।

ছোট ও মাঝারি আকারের দুগ্ধ ও পোল্ট্রি খামার প্রতিষ্ঠা এবং মৎস্য চাষের জন্য সহজ শর্তে ঋণ, প্রয়োজনমত ভর্তুকি, প্রযুক্তিগত পরামর্শ ও নীতি সহায়তা বৃদ্ধি করা হবে।

৩.১৫ বিদ্যুৎ ও জ্বালানি
২০০৯ সালে বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ছিল ৪ হাজার ৯০০ মেগাওয়াট আর দৈনিক সরবরাহ ছিল ৩২০০ মেগাওয়াট। বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ২০ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট। ২০২০ সালের মধ্যে সকলের জন্য বিদ্যুৎ নিশ্চিত করা হবে। ২০২৩ সালের মধ্যে ২৮ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ এবং ৫,০০০ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি সরবরাহ করা হবে।

৩.১৬ শিল্প উন্নয়ন
কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে আমরা শ্রমঘন ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্প উন্নয়নে জোর দিয়ে যাচ্ছি। সারাদেশে ১০০টি সরকারি ও বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন কর্মসূচি হাতে নিয়েছি। এ পর্যন্ত ৮৯টি অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের নীতিগত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে এবং ১৪টির কাজ এগিয়ে চলছে।
অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলো আনুমানিক অতিরিক্ত ৪০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় বৃদ্ধি করবে এবং প্রায় এক কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হবে।
পাটজাত পণ্যের রপ্তানিতে আর্থিক প্রণোদনা অব্যাহত রাখা হবে। কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ খাতকে বিশেষ গুরুত্ব সহকারে সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে।

পদ্মা সেতুর দুই পাড়ে আধুনিক শিল্পনগরী গড়ে তোলা হবে। প্রতিটি বিভাগীয় শহরে আইটি শিল্প পার্ক স্থাপন করা হবে এবং এসব শিল্প পার্কে আগামী পাঁচ বছরে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক তরুণের কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে।

৩.১৭ শ্রমিক কল্যাণ ও শ্রমনীতি
৪৩টি শিল্প খাতের মধ্যে ৪০টি খাতের শ্রমিকদের জন্য ন্যূনতম মজুরি পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছে। তৈরি পোশাকশিল্পে কর্মরত শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি ২০০৮ সালের ১৬০০ টাকা থেকে বৃদ্ধি করে ৮ হাজার টাকা করা হয়েছে। নারী ও পুরুষ শ্রমিকদের বেতন বৈষম্য দূর করার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। শিল্প শ্রমিকদের মৌলিক অধিকার সুরক্ষা করা হবে। নারী শ্রমিকদের জন্য ৪ মাসের বেতনসহ মাতৃত্বকালীন ছুটি বাস্তবায়ন করা হবে। শ্রমিকদের স্বস্থ্যসেবা, বাসস্থান, কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা ও চিত্ত বিনোদনের ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে। শ্রমিক, হতদরিদ্র এবং গ্রামীণ ভ‚মিহীন ক্ষেতমজুরদের জন্য রেশনিং প্রথা চালু করা হবে।

৩.১৮ শিক্ষা
আমরা সবার কাছে গ্রহণযোগ্য যুগোপযোগী শিক্ষা নীতি প্রণয়ন করেছি। ২০১০ থেকে ২০১৮ পর্যন্ত মাধ্যমিক পর্যায় পর্যন্ত সর্বমোট ২৬০ কোটি ৮৫ লক্ষ ৯১ হাজার বই বিতরণ করা হয়েছে।
প্রতিটি উপজেলায় একটি করে টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট স্থাপন করা হবে। ইতোমধ্যে ১০০টি উপজেলায় এ ধরনের ইনস্টিটিউট স্থাপনের কাজ চলছে। শিক্ষাখাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ নিশ্চিত করা হবে। শিক্ষার মান উন্নয়নে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। সকল গ্রামে, আধা মফস্বল শহরে এবং শহরের নিম্নবিত্তের স্কুলসমূহে পর্যায়ক্রমে স্কুল ফিডিং কর্মসূচি চালু করা হবে। প্রাথমিক থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত উপবৃত্তি প্রদান অব্যাহত থাকবে।

মাদ্রাসা শিক্ষাকে মূলধারার শিক্ষার সঙ্গে সামঞ্জস্যর্পূণ করা হচ্ছে। কওমী মাদ্রাসার দাওয়ারে হাদিস ডিগ্রিকে মাস্টার্স-এর সম-মর্যাদা দেওয়া হয়েছে।

নৃ-গোষ্ঠীর নিজস্ব ভাষায় শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি করে প্রয়োজনীয় বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকগণের বেতন গ্রেডসহ শিক্ষাখাতের কিছু কিছু ক্ষেত্রে যে বৈষম্য রয়ে গেছে, তা ন্যায্যতার ভিত্তিতে নিরসন করা হবে।

৩.১৯ স্বস্থ্যসেবা ও পরিবার কল্যাণ
বর্তমানে সারাদেশে ১৬ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে গ্রামীণ জনগণকে স্বস্থ্যসেবা এবং ৩০ প্রকার ঔষধ বিনামূল্যে দেওয়া হয়। মানুষের প্রত্যাশিত গড় আয়ু এখন ২০০৯ সালের ৬৬.৮ বছর হতে ৭২.৮ বছরে উন্নীত হয়েছে।

১ বছরের নিচে ও ৬৫ বছরের উপরে সকল নাগরিকের জন্য বিনামূল্যে স্বস্থ্যসেবা দেওয়া হবে।

সকল বিভাগীয় শহরে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হবে। কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোর ভবনসহ সকল সুবিধা পর্যায়ক্রমে আধুনিকীকরণ করা হবে।

৩.২০ যোগাযোগ
বিগত ১০ বছরে যোগাযোগ খাতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। এ সময়ে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর প্রায় ২৪ হাজার কিলোমিটার মহাসড়ক মজবুত, সম্প্রসারণ, সংস্কার বা কার্পেটিং করেছে। ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহ, নবীনগর-চন্দ্রাসহ এ পর্যন্ত প্রায় ৪২০ কিলোমিটার জাতীয় মহাসড়ক চারলেন বা তদূর্ধ্ব লেনে উন্নীত করা হয়েছে। কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত ৮০ কিলোমিটার মেরিন ড্রাইভ নির্মাণ করা হয়েছে। ৯১৪টি সেতু, ৩ হাজার ৯৭৭টি কালভার্ট নির্মাণ ও পুনঃনির্মাণ করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ৫২ হাজার ২৮০ কিলোমিটার সড়ক উন্নয়ন করা হয়। এছাড়া, ৭৫ হাজার ৭৭৩ কিলোমিটার পাকা সড়ক ও ৩১ হাজার ৬৩৭ মিটার ব্রিজ/কালভার্ট রক্ষণাবেক্ষণ বা পুনর্বাসন করা হয়। ৩ লাখ ১ হাজার ৩৪১ মিটার ব্রিজ/কালভার্ট নির্মাণ বা পুনঃনির্মাণ করা হয়।

ঢাকা মহানগরীর যোগাযোগ ব্যবস্থাকে আধুনিকায়নের উদ্দেশ্যে ঢাকা মাস র‌্যাপিড ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের আওতায় মেট্রোরেল বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।
উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত অংশের নির্মাণ কাজ ২০১৯ সালের ডিসেম্বর এবং বাংলাদেশ ব্যাংক পর্যন্ত অংশ পরের বছর ডিসেম্বর মাসের মধ্যে শেষ হবে। তৃতীয় পর্যায়ে পল্লবী থেকে উত্তরা পর্যন্ত ৪.৭ কিলোমিটার অংশ চালু হবে ২০২২ সালে।

হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে নারায়ণগঞ্জের কুতুবখালী পর্যন্ত ৪৭ কিলোমিটার দীর্ঘ চার-লেন বিশিষ্ট প্রথম ঢাকা এলিভেটড এক্সপ্রেসওয়ে তিনটি পর্বে নির্মিত হচ্ছে।

বিমানবন্দর থেকে আশুলিয়া হয়ে চন্দ্রা পর্যন্ত ৩৫ কিলোমিটার দীর্ঘ আরেকটি এলিভেটেড এক্সপ্র্রেসওয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়া, ইস্ট-ওয়েস্ট এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নামে সাভারের হেমায়েতপুর হতে নারায়ণগঞ্জের মদনপুর পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে।

ঢাকা ও বিভাগীয় শহরের মধ্যে বুলেট ট্রেন চালু করা হবে। দেশের আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরগুলোকে আধুনিকায়ন করা হবে।

আগামী ৫ বছরে প্রায় ১০ হাজার কিলোমিটার নৌপথ খনন করা হবে।

ঢাকার চারপাশের ৪টি নদী-খালগুলোকে খননের মাধ্যমে নদী তীরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা হবে।

একটি নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নির্মাণ করা হবে। বিদ্যমান আন্তর্জাতিক এবং অভ্যন্তরীণ বিমান বন্দরগুলোর আধুনিকায়ন ত্বরান্বিত করা হবে।

রাজধানীর গণপরিবহনে শৃংখলা ফিরিয়ে আনতে আধুনিক বাস সার্ভিস চালু করা হবে। মহাসড়কের পাশে অবস্থিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের নিরপত্তার জন্য আন্ডারপাস/ওভারপাস র্নিমাণ করা হবে। উত্তরাঞ্চলের সঙ্গে যোগাযোগ সহজ করার জন্য যমুনা নদীর তলদেশ দিয়ে টানেল নির্মাণ করা হবে।

৩.২১ ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নপূরণ: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি
৫ হাজার ৭৩৭টি ডিজিটাল সেন্টার এবং ৮ হাজার ২০০টি ই-পোস্ট অফিসের মাধ্যমে জনগণকে ২০০ ধরনের ডিজিটাল সেবা প্রদান করা হচ্ছে।

ইউনিয়ন পর্যায় পর্যন্ত অপটিক্যাল ফাইবার সম্প্রসারণ করা হয়েছে। মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রবেশ করেছে মহাকাশ বিজ্ঞানের যুগে।

জনগণের ভোটে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পেলে আমরা ২০২১-২৩ সালের মধ্যে ৫-জি চালু করব। ইন্টারনেট ও মোবাইল ব্যবহারের মূল্য যুক্তিসঙ্গত পর্যায়ে নামিয়ে আনা হবে।

৩.২২ সমুদ্র বিজয়: ব্লু-ইকোনমি- উন্নয়নের দিগন্ত উন্মোচন
মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমার বিরোধ নিষ্পত্তির ফলে বাংলাদেশের সমুদ্রভিত্তিক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড, সামুদ্রিক পর্যটন শিল্প ইত্যাদি খাতে কর্মসংস্থানের অপার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে। আমরা দায়িত্ব পেলে সমুদ্র সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার সুনিশ্চিত করব।

৩.২৩ জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশ সুরক্ষা
২০০৯ সালে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন কৌশলপত্র ও কর্মপরিকল্পনা তৈরি করি এবং এর আওতায় ১৪৫টি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় ৪০০ মিলিয়ন ডলারের বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করা হয়েছে।
জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষকে সাহায্য করার লক্ষ্যে ‘বাংলাদেশ জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ডে’ বরাদ্দ আরও বাড়ানো হবে। উৎপাদনশীল বনের আয়তন ২০১৫ সালের ১৩.১৪ শতাংশ হতে ২০ শতাংশে উন্নীতকরণ করা হবে।

৩.২৪ শিশু কল্যাণ
আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। শিশুশ্রম বন্ধ করার লক্ষ্যে গড়ে ওঠা সুদৃঢ় সামাজিক নিরাপত্তা এবং স্বস্থ্য, শিক্ষা, বৃত্তি ও নানাবিধ কর্মকাণ্ড উন্নত ও প্রসারিত করা হবে। পথশিশুদের পুনর্বাসন ও নিরাপদ আবাসনের ব্যবস্থা, হতদরিদ্র ও ছিন্নমূল শিশুদের জন্য শিশুসদন প্রতিষ্ঠা এবং বাধ্যতামূলক প্রাথমিক শিক্ষার পাশাপাশি বৃত্তিমূলক শিক্ষাদানের ব্যবস্থা উন্নত ও প্রসারিত করা হবে।

৩.২৫ প্রতিবন্ধী ও প্রবীণ কল্যাণ
প্রতিবন্ধী সকল শিশুর সুস্বাস্থ্য, শিক্ষা, মর্যাদা ও নিরাপদ ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করা হবে। প্রতিবন্ধী মানুষের শিক্ষা, কর্মসংস্থান, চলাফেরা, যোগাযোগ, চিকিৎসা সহজ করা এবং তাদের সামাজিক মর্যাদা প্রতিষ্ঠার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রবীণদের জন্য সম্ভাব্য ক্ষেত্রে আয় সৃষ্টিকারী কার্যক্রম গ্রহণ, প্রবীণদের বিষয়ে সামাজিক দায়বদ্ধতা ও সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

৩.২৬ মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন
মুক্তিযোদ্ধাদের বার্ধক্যকালীন ভরণ-পোষণ, বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান এবং ষাট ও তদূর্ধ্ব বয়সের সকল মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মানিত নাগরিক হিসেবে রেল, বাস ও লঞ্চে বিনামূল্যে চলাচলের সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। এসব কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

দেশের সর্বত্র মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি রক্ষা, ইতিহাস বিকৃতি রোধ এবং প্রকৃত ইতিহাস তুলে ধরার জন্য বিশেষ কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে। সারাদেশে মুক্তিযুদ্ধকালীন বধ্যভ‚মি ও গণকবর চিহ্নিতকরণ, শহিদদের নাম-পরিচয় সংগ্রহ এবং স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হবে।

৩.২৭ ধর্ম ও সংস্কৃতি
সংবিধান অনুযায়ী সকল নাগরিকের স্বাধীনভাবে ধর্ম পালনের অধিকার সুনিশ্চিত করা হবে। ধর্ম যাঁর যাঁর, উৎসব সবার- এই নীতি সমুন্নত রাখা হবে। অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বাংলাদেশের সমাজ গড়ে তোলা হবে।
কোরান-সুন্নাহ বিরোধী কোন আইন করা হবে না। সারাদেশে ৫৬০টি মসজিদ-কাম-ইসলামী কালচারাল সেন্টার নির্মাণ করা হচ্ছে।
বাঙালি সংস্কৃতির অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও বিকাশে আওয়ামী লীগ সরকারের অনুসৃত নীতি ও কর্মপরিকল্পনা অব্যাহত থাকবে। বাংলা ভাষা, সাহিত্য, চারু ও কারুকলা, সঙ্গীত, যাত্রা, নাটক, চলচ্চিত্র এবং সৃজনশীল প্রকাশনাসহ শিল্পের সব শাখার ক্রমাগত উৎকর্ষ সাধন ও চর্চার ক্ষেত্রকে প্রসারিত করার জন্য রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা বাড়ানো হবে।

৩.২৮ ক্রীড়া
বিশ্ব ক্রিকেটে বাংলাদেশের বর্তমান গৌরবোজ্জ্বল অবস্থানকে আরও সৃদৃঢ় করার পাশাপাশি ফুটবল, হকিসহ অন্যান্য খেলাধুলাকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীত করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। ক্রীড়া ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন, অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি, প্রশিক্ষণ সুবিধার সম্প্রসারণে পরিকল্পিত উদ্যোগ নেওয়া হবে। প্রতিটি উপজেলায় মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করা হবে।

৩.২৯ ক্ষুদ্র নৃ-তাত্ত্বিক জনগোষ্ঠী, ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও অনুন্নত সম্প্রদায়
পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির যেসব ধারা এখনও বাস্তবায়িত হয়নি, সেগুলো বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভূমিতে প্রকৃত ¯^ত্বাধিকারীদের অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হবে। জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন গঠন করা হবে। সংখ্যালঘু ও ক্ষুদ্র নৃ-জাতিগোষ্ঠীর প্রতি বৈষম্যমূলক সকল প্রকার আইন ও ব্যবস্থার অবসান করা হবে।

৩.৩০ গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও অবাধ তথ্য প্রবাহ
মিথ্যা তথ্য প্রচার ও অনাকাংখিত গুজব নিরসনে কার্যকর ভূমিকা গ্রহণ করা হবে। সামাজিক দায়বদ্ধতাসমৃদ্ধ সাংবাদিকতা ও সংবাদ মাধ্যম উন্নয়নে সহায়তা প্রদান করা হবে।

অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা চর্চায় সাংবাদিকদের উৎসাহ প্রদান ও প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পেশাগত দায়িত্ব পালনে সাংবাদিক ও সংবাদকর্মীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। গণমাধ্যম-বান্ধব আইন করা হবে। সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে কোন আইনের অপপ্রয়োগ হবে না।

৩.৩১ প্রতিরক্ষা: নিরাপত্তা সার্বভৌমত্ব ও অখণ্ডতা সুরক্ষা
আমরা ফোর্সেস গোল-২০৩০ প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করছি। সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীতে আধুনিক সমরাস্ত্র, যানবাহন এবং প্রযুক্তির সম্মিলন ঘটানো ছাড়াও সেনাসদস্যদের দক্ষতা বৃদ্ধির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সিলেট, রামু (কক্সবাজার) ও বরিশালে তিনটি ক্যান্টনম্যন্ট প্রতিষ্ঠা, তিনটি পদাতিক ডিভিশন ও পদ্মাসেতু কম্পোজিট ব্রিগেডসহ বহু ইউনিট গঠন করা হয়েছে।

আমরা নির্বাচিত হলে সশস্ত্র বাহিনীকে সকল বিতর্কের উর্ধ্বে রাখার যে নীতি গ্রহণ করেছি তা অব্যাহত থাকবে। সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী ও বিমান বাহিনী আধুনিকায়নের চলমান প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে।

৩.৩২ পররাষ্ট্র
বিগত দশ বছরে বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর হয়েছে। ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়’- বঙ্গবন্ধু প্রবর্তিত এই নীতির আলোকে আমরা আমাদের পররাষ্ট্র নীতি পরিচালনা করছি।
আমরা মিয়ানমার এবং ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ শান্তিপূর্ণভাবে সমাধান করেছি। ভারতের সঙ্গে স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে ছিটমহলবাসীর ৬৮ বছরের বন্দীত্ব জীবনের অবসান হয়েছে।

আমরা নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করলে ভারতের সঙ্গে তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানি বণ্টন এবং দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও নিরাপত্তা সহযোগিতাসহ সকলক্ষেত্রে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। প্রতিবেশি দেশগুলোর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সহাযোগিতা বৃদ্ধি করা হবে।

বাংলাদেশের ভূখণ্ডে জঙ্গিবাদ, আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ এবং বিচ্ছিন্নতাবাদী কোন শক্তিকে প্রশ্রয় না দেওয়ার নীতি অব্যাহত থাকবে।

গত বছর মিয়ানমারে নির্যাতনের মুখে ১১ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠি বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করে। আমরা মানবিক কারণে তাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছি। বাংলাদেশের এই মানবিক সিদ্ধান্ত বিশ্ব সম্প্রদায়ের প্রশংসা কুড়িয়েছে।

রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর জন্য দ্বিপাক্ষিকভাবে আলোচনা ছাড়াও জাতিসংঘসহ বিভিন্ন দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক ফোরামে আমরা প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

৩.৩৩ এনজিও
বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহ স্বশাসিতভাবে তাদের নিজস্ব বিধি মোতাবেক পরিচালিত হবে। সরকারি প্রতিষ্ঠান/বিভাগ স্থানীয় সরকারের সাথে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের স্বেচ্ছামূলক সমন্বয় জোরদার করা হবে।

৪. এমডিজি অর্জন এবং এসডিজি (টেকসই উন্নয়ন) বাস্তবায়ন কৌশল (২০১৬-২০৩০)
দারিদ্র ও ক্ষুধা নির্মুল, নারী-পুরুষ সমতা ও নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু মৃত্যুর হার হ্রাস এবং মাতৃস্বাস্থ্যের উন্নয়ন-এই চারটি এমডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ বিশেষ সাফল্য অর্জন করে প্রশংসিত হয়েছে। সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা বাস্তবায়নের সঙ্গে সম্পৃক্ত করে এসডিজির লক্ষ্যমাত্রাগুলো অর্জন করা হবে।

৫. ব-দ্বীপ বা ডেল্টা পরিকল্পনা ২১০০
জলবায়ুর ঘাত-প্রতিঘাত সহ্য করে কাংখিত উন্নয়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় জন্য ‘বাংলাদেশ বদ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০’ শতবর্ষের একটি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

এই পরিকল্পনাটি ২০৩০ সালের মধ্যে আমাদের মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে একটি সমৃদ্ধ দেশের মর্যাদা অর্জন করতে সহায়ক হবে। বদ্বীপ পরিকল্পনা ২১০০ সাল নাগাদ স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনাসমূহের সমন্বয়ের যোগসূত্র সৃষ্টি করবে।

প্রিয় দেশবাসী,
আমরা কথায় নয়, কাজে বিশ্বাসী। আমাদের এবারের অঙ্গীকার আমরা টেকসই বিনিয়োগ ও অন্তভর্‚ক্তিমূলক উন্নয়ন নিশ্চিত করব।

এটা দিবালোকের মত স্পষ্ট যে, আওয়ামী লীগ সরকার পরিচালনার দায়িত্ব পেলে জনগণ কিছু পায়। সাধারণ মানুষের জীবনজীবিকা ও সমৃদ্ধির সকল সুযোগ ও সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচিত হয়।

মানুষ মাত্রই ভুল হয়। কাজ করতে গিয়ে আমার বা আমার সহকর্মীদেরও ভুল-ভ্রান্তি হয়ে থাকতে পারে। আমি নিজের এবং দলের পক্ষ থেকে আমাদের ভুল-ভ্রান্তিগুলো ক্ষমাসুন্দর চোখে দেখার জন্য দেশবাসীর প্রতি সনির্বন্ধ অনুরোধ জানাচ্ছি।

আমি কথা দিচ্ছি, অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে আমরা আরও সুন্দর ভবিষ্যত নির্মাণ করব। জাতির পিতার কাঙ্ক্ষিত ক্ষুধা, দারিদ্র্য, নিরক্ষরতামুক্ত অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলব।

প্রিয় দেশবাসী,
আমার ব্যক্তিগত কোন চাওয়া-পাওয়া নেই। বাবা-মা-ভাই, আত্মীয়-পরিজনকে হারিয়ে আমি রাজনীতি করছি শুধু জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তাবায়নের জন্য; এ দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য।

এদেশের সাধারণ মানুষ যাতে ভালোভাবে বাঁচতে পারেন, উন্নত-সমৃদ্ধ জীবনের অধিকারী হতে পারেন – তা বাস্তবায়ন করাই আমার জীবনের একমাত্র লক্ষ্য।

আগামী ২০২০ সালে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী এবং ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী আমরা সাড়ম্বরে পালন করব। বাঙালি জাতির এই দুই মাহেন্দ্রক্ষণ সামনে রেখে মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগই পারবে দেশকে সামনে এগিয়ে নিতে। স্বাধীনতা-বিরোধী কোন শক্তি এ সময় রাষ্ট্র-ক্ষমতায় থাকলে তা হবে মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য গ্লানিকর।

তাই দেশবাসীর প্রতি আকুল আবেদন, আগামী ৩০ তারিখে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আবার আওয়ামী লীগের বিজয় নিশ্চিত করুন। আপনারা নৌকায় ভোট দিন, আমরা আপনাদের উন্নয়ন ও সমৃদ্ধি দিব।

সাতচল্লিশ বছর আগে ১৯৭১ সালে ৯-মাসের সশস্ত্র-রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধ শেষে ডিসেম্বরের ১৬ তারিখে বাঙালি জাতি চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করেছিল। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের ৩০ তারিখে ব্যালট বিপ্লবের মাধ্যমে বাঙালি জাতি এবার স্বাধীনতার প্রতীক নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আনবে- এ বিশ্বাস আমার আছে। বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত, ইনশাআল্লাহ।

সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের সহায় হোন।

খোদা হাফেজ।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।

পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন: http://manifesto2018.albd.org/files/Manifesto-2018_Presentation.pdf